Header Ads

Video : Booking for sale before Childbirth ! অন্যের পেটে সন্তান বুকিং!




















গোবিন্দ বিশ্বাস পেশায় একটি দোকানের কর্মচারী। তার আগেই দুটো পুত্রসন্তান রয়েছে। গোবিন্দ বিশ্বাসের স্ত্রী চৈতালি বিশ্বাস আবার গর্ভবতী হয়ে পড়েন। ওই এলাকার সুমন নামে একটি ছেলের মাধ্যমে অসীম দাস ও তাঁর স্ত্রী জলি দাসের সঙ্গে কথা হয় শিশু বিক্রি করার। গোবিন্দর অভাবের সংসারে দেড় লাখ টাকায় সুমনের সঙ্গে রফা হয় শিশু বিক্রির। সেই মতো দাস দম্পতির সঙ্গে কথা হয়েছিল। চুক্তি হয় সন্তান জন্মানো পর্যন্ত সব খরচ বহন তাঁদেরই করতে হবে। সেই মতো চৈতালি প্রসব যন্ত্রণা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া পর্যন্ত সমস্ত খরচ বহন করেন দাস দম্পতি। ছ’দিন আগে জন্মেছে শিশুটি। গতকাল দাস দম্পতি গোবিন্দ বিশ্বাসের বাড়িতে যায় শিশুটিকে আনতে।
তারপরই ঘটে বিপত্তি। চৈতালি শিশুকে দিতে অস্বীকার করেন। দাস দম্পতি স্থানীয় লোকজন ও পুলিশকে বিষয়টি জানান। তারপরই অশোকনগর থানার পুলিশের হস্তক্ষেপে শিশুকে তার মায়ের কাছে তুলে দেওয়ার ব্যবস্থা করে। এরকম ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়ায়। তবে দাস দম্পতি যাবতীয় টাকা ফেরত পায়নি বলে জানা যায়। আজ পুলিশ এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত প্রত্যেককেই আটক করে।

No comments