Header Ads

মন্দির,বাড়ির সামনে রক্ত ফেলে দেওয়াকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে এলাকায় শান্তি বজায় রাখার আবেদন জানাল বিভিন্ন রাজনৈতিক দল






মন্দির,বাড়ির সামনে রক্ত ফেলে দেওয়াকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে এলাকায় শান্তি বজায় রাখার আবেদন জানাল বিভিন্ন রাজনৈতিক দল।
সিপিআইএমের জেলা সম্পাদক অপূর্ব পাল বলেন,’যারা ধর্মীয় মেরুকরণ করে গুজব ও অপপ্রচার করে এই ধরনের পরিস্থিতি তৈরি করছে তাদের চিহ্নিত করে অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়া হোক। পাশাপাশি পুলিশ প্রশাসকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখার আবেদন জানাচ্ছি। এছাড়াও মানুষ যাতে গুজবে কান না দেন এবং এব্যাপারে সতর্ক থাকেন তার আবেদন রাখছি।’
এদিকে জেলা বিজেপি সভাপতি নির্মল দাম বলেন,’পরিস্থিতি নিয়ে আমরা বৈঠকে বসছি। সেখানে দলীয় ভাবে পরবর্তী পদক্ষেপের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে এই ধরনের ঘটনার জন্য দায়ী তোষণ নীতি।’ এদিকে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের মন্ত্রী গোলাম রব্বানী বলেন,’পরবে গন্ডগোল করার অধিকার কারোর নেই। আমি প্রশাসনকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখার নির্দেশ দিয়েছি। তবে ক্ষমতায় আসার জন্য কিছু মানুষ ওই ধরনের ঘটনা ঘটাচ্ছে। যারা এই ধরনের ঘটনার সাথে যুক্ত তাদের চিহ্নিত করতে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রচুর পুলিশ নামানো হয়েছে। উল্লেখ্য দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে সকাল থেকেই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে রায়গঞ্জ থানার অন্তর্গত বামন গ্রাম এবং ছিটকিয়া এলাকায়। গ্রামবাসীদের অভিযোগ,’গতকাল ছিল মুসলিমদের ইদুজ্জোহা উৎসব। রাতে কোন প্রাণীর রক্ত স্থানীয় একটি মন্দিরের সামনে রেখে দেয় দুষ্কৃতীরা। কিছু বাড়ির সামনেও দেখা যায় রক্ত। রবিবার সকালে বিষয়টি জানাজানি হতেই এনিয়ে গন্ডগোল শুরু হয়।’ এই ঘটনায় তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যায় রায়গঞ্জ থানার বিশাল পুলিশ। একই পরিস্থিতি রায়গঞ্জের বামন গ্রামেও। এই ঘটনায় নিরাপদ বর্মণ নামে একজন আহত হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রচুর পুলিশ নামানো হয়েছে।

No comments