Header Ads

৯কোটি মানুষের মধ্যে ১০শতাংশ মানুষ যারা তৃণমূল করে তাদের পকেট ভারি হয়েছে

 1


আমি যদি পুলিশ হতাম তাহলে অনুব্রতকে ডান্ডা দিয়ে পেটাতে পেটাতে থানায় নিয়ে যেতাম।কিন্তু কিছু পুলিশ
৯কোটি মানুষের মধ্যে ১০শতাংশ মানুষ যারা তৃণমূল করে তাদের পকেট ভারি হয়েছে। বাকিরা সব গরিব হয়ে গিয়েছে।তৃণমূল নেতাদের টাকা কামানোর নেশা পশ্চিমবাংলাকে শেষ করে দিয়েছে।  শুক্রবার বর্ধমানের কালনায় বিজেপির একটি জনসভাতে এভাবেই নাম না করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করে একথাই বললেন বিজেপির রাজ্যনেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়।

তিনি বলেন,অফিসার আছে যারা পোষ্টিং  চাকরি যাবার ভয়ে আর পদোন্নতির জন্য তৃণমূলের নেতাদের মাথায় তুলে রাখছেন।' পুলিশকে এভাবে আক্রমণ করে পুলিশ মন্ত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বিজেপির গ্রামবাঙলা মাতানো টলিউড অভিনেতা তথা রাজ্যস্তরের নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, আপনি ধৃতরাষ্ট্রের মত চুপ করেছিলেন। আপনার ভাই ভাইপো চেলা চামুন্ডাদের চুরি করতে দিয়েছেন। আপনি কিছু বলেননি।


 এদিন তিনি বলেন, অথচ আপনি মোদিকে দেখুন। সমস্ত মন্ত্রীরা তাকে দেখে ভয় পায়। কোনও রকম দূর্নীতি করার সাহস তাদের নেই। মোদিজী তার ভাইঝির চাকরীর বিষয়ে আপস করেননি। শুক্রবার বিজেপির এই জনসভায় তৃণমূল থেকে প্রায় দুই শতাধিক তৃণমূলের সমর্থক যোগদান করেন বলে দাবি বিজেপি নেতৃত্বের। নতুনদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন জয় বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপির ওই রাজ্যনেতা বলেন, তৃণমূল নেতাদের টাকা কামানোর প্রতিযোগীতা বাড়ির ভিতরে ঢুকে গিয়েছে। স্ত্রী বলছে তুমি বেশি কামিয়েছ। স্বামী বলছে তুমি বেশি কামিয়েছ। এই ঝামেলা বিবাহ বিচ্ছেদের জায়গায় পৌছে গিয়েছে। এদিন বর্ধমানের কালনায় বিজেপির একটি জনসভাতে এভাবেই নাম না করে কলকাতার মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করলেন বিজেপির রাজ্যনেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়।

এইদিন তিনি ডেঙ্গু রোগের সত্যতা প্রকাশে মুখ্যমন্ত্রীকেও একহাত নেন।তিনি বলেন,'ডেঙ্গু রোগে কতজনের মৃত্যু হয়েছে সেই সত্যতা প্রকাশের জন্য আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে।আর এই সত্য যখন প্রকাশ পাবে তখন মুখ্যমন্ত্রী পালাবার আর পথ পাবেন না।'পাশাপাশি পুলিশকে লক্ষ্য করে তৃণমূল নেতা অনুব্রত মন্ডল যে আক্রমণ করেছেন সেই উক্তিকে তুলে ধরে নিন্দায় সরব হোন জয় বন্দ্যোপাধ্যায়।এইদিন তিনি এই বিষয়ে পুলিশের প্রতি আবেদনে জানান ,'পুলিশের পোশাক যথেষ্ট সম্মানের। দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে তৃণমূল নেতাদের গালমন্দ খাবেন না।

No comments